Advertise With Us
For Questions, Enquiries, Click Here
Page | Group - Follow us - Call Us - Admin - bdpathan420@gmail.com

আজকে আমি আপানাদের সামনে ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষে যারা একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নিশ্চায়ন ফি জমা দেন নাই তারা কীভাবে পরবর্তী ধাপগুলোর কাজ করবেন সেই তথ্য জানানোর পোস্ট নিয়ে হাজির হয়েছি। যারা ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য বিভিন্ন কলেজ পছন্দ করে এর আগে আবেদন করেছিলেন। এবং পরবর্তীতে প্রথম মেধা তালিকার ফল প্রকাশের যে কলেজের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন। কিন্তু সেটিতে আপনি পড়তে চান না অর্থাৎ আপনার পছন্দানুযায়ী কলেজে আপনি নির্বাচিত হননি। সেক্ষেত্রে আপনি পরবর্তী ধাপ নিশ্চায়ন ফি জমা দেননি। মানে আপনি নিশ্চিত করেননি যে, সে কলেজে ভর্তি হবেন। তাহলে আজকের থেকে আপনার আবার সুযোগ আছে কলেজ পছন্দ করার যাকে আবেদন আপডেট বলে। এই পর্যায়কে বলে ২য় মেধা তালিকা। এইভবে আপনি ৩য় মেধা তালিকা পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। এর মাধ্যমে আপনি আপনার পছন্দানুযায়ী কলেজ সংযোজন ও বিয়োজন করতে পারবেন। তো কে কে এই বর্তমান আবেদনের সুযোগটি পাবেন তা সম্পর্কে নিচে থেকে জেনে নেই।

আপনাদের মধ্যে যারা এর আগে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার জন্য বিভিন্ন কলেজ পছন্দ করে আবেদন করেছিলেন। কিন্তু প্রথম মেধা তালিকা প্রকাশের পর কোনো কলেজের জন্য নির্বাচিত হননি। অর্থাৎ কলেজের আসন পাননি, তারা এখন আবার আগের পছন্দ করা কলেজ বিয়োজন বা নতুন কলেজ সংযোজন করে কোনো প্রকার ফি প্রদান ছাড়াই আবেদন করতে পারবেন।

আর যারা এর আগে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার জন্য আবেদন করেননি বা ভর্তির জন্য আবেদন করে নির্বাচিত হয়েও ভর্তির নিশ্চায়ন ফি জমা দেননি। তারা বর্তমানে আবার আবেদন করতে আবেদন ফি বাবদ টেলিটক, ডাচ বাংলা ব্যাংক (রকেট), শিওরক্যাশের মাধ্যমে আবার ১৫০/- টাকা জমা দিয়ে আবেদন করতে পারবেন। (১৫০/- টাকা পাঠানোর পদ্ধতি হলো প্রথম আবেদনের অাগে যেই পদ্ধতিতে টাকা পাঠিয়েছিলেন সেই পদ্ধিততেই পাঠাবেন।)

আর যারা এর আগে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার জন্য ১৫০/- টাকা পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু টাকা পাঠানোর পর আর আবেদন করেননি। তারও এখন ইচ্ছে করলে আবেদন করতে পারেবন। নতুন করে কোনো ফি পাঠাতে হবে না।

আপনি উক্ত আবেদনটি অনলাইন এবং এসএমএস উভয় মাধ্যমেই করতে পারবেন। আশা করি উভয় আবেদনের পদ্ধতিটা সকলেরই জানা আছে। আর যাদের জানা নাই তারা নিচে থেকে এসএমএসের মাধ্যমে কীভাবে আবেদন করবেন তা জানতে নিচের স্ক্রিনশট এবং অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে নিচের ভিডিওটি দেখতে পারেন।
উপরের স্ক্রিনশটটি ভালো করে ফলো করুন এবং এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন করুন। মনে রাখবেন শুধুমাত্র টেলিটক সিম দ্বারা এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।
প্রথমে উপরের স্ক্রিনশটটি ফলো করুন। উপরের স্ক্রিনশটের মত "Apply/Update" বাটনে ক্লিক করুন। তারপর পরবর্তী ধাপে কাজ করতে নিচের ভিডিওটি ফলো করুন।
তাহলে আর কী উপরের ভিডিওটি ভালো করে ফলো করুন এবং অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করুন।

এইবার আসুন এসএমএস এবং অনলাইনে আবেদনের সময় ব্যবহৃত বিভিন্ন কোড সম্পর্কে জেনে নেই।

ভর্তিচ্ছু গ্রুপের কিওয়ার্ড : সাধারন বোর্ড - Science এর জন্য SC, Humanities এর জন্য HU, Business Studies এর জন্য BS, Home Economics এর জন্য HE, Islamic Studies এর জন্য IS। মাদরাসা বোর্ড - Science এর জন্য MS, General এর জন্য GE, Muzabbid এর জন্য MU লিখতে হবে, Hifzul Quran এর জন্য HQ লিখতে হবে। কারিগরি শিক্ষা বোর্ড - [HSCVOC – (Agro Machinery এর জন্য AM, Automobile এর জন্য AU, Building Maintenance and Construction এর জন্য BC, Clothing and Garments Finishing এর জন্য CG, Computer Operation and Maintenance এর জন্য CO, Drafting Civil এর জন্য DC, Electronic Works and Maintenance এর জন্য EW, Electronic Control and Communication এর জন্য EC, Fish Culture and Breeding এর জন্য FC, Machine Tools Operation and Maintenance এর জন্য MT, Welding and Fabrication এর জন্য WF, Industrial Wood Working এর জন্য IW, Wet Processing এর জন্য WP, Yarn and Fabric Manufacturing এর জন্য YF, Warehouse and Storekeeping এর জন্য WS, Home Science এর জন্য VH)], [HSCBM (Accounting এর জন্য HA, Banking এর জন্য HB, Computer Operation এর জন্য HC, Entrepreneurship Development এর জন্য ED, Agriculture এর জন্য AG )] লিখতে হবে।

শিফটের ক্ষেত্রে : Morning এর জন্য M, Day এর জন্য D, Evening এর জন্য E এবং ভর্তিচ্ছু কলেজের যদি কোন শিফট না থাকে সে ক্ষেত্রে N লিখতে হবে।

ভার্সনের ক্ষেত্রে : বাংলা ভার্সনের ক্ষেত্রে B আর ইংলিশ ভার্সন এর ক্ষেত্রে E লিখতে হবে।

কোটার ক্ষেত্রে : মুক্তিযোদ্ধা কোটার জন্য FQ এবং শিক্ষা মন্ত্রনালয়, শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অধিনস্ত দপ্তরসমুহ, স্ব স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারী এবং প্রতিষ্ঠানের গভর্নিং বডির সদস্যদের সন্তানদের কোটার জন্য EQ এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ঘোষিত বিশেষ কোটার জন্য SQ লিখতে হবে। কোন শিক্ষার্থী একাধিক কোটার আবেদন করার যোগ্যতা থাকলে কমা (,) দিয়ে একাধিক কোটা উল্লেখ করতে হবে। প্রবাসী কোটার ক্ষেত্রে PQ লিখতে হবে। কোন ধরনের কোটা না থাকলে কোটার জায়গায় কিছু লিখতে হবেনা।

বিঃ দ্রঃ ২য় পর্যায়ের আবেদনের সময়সীমা ১৯ থেকে ২০ জুন পর্যন্ত(ম (যেটা বর্তমানে চলতেছে)। পছন্দক্রম অনুযায়ী ১ম মাইগ্রেশনের ফল প্রকাশ ২১ জুন। ২য় পর্যায়ের শিক্ষার্থীর Selection নিশ্চায়ন (শিক্ষার্থী নিশ্চিত না করলে ২য় পর্যায়ের Selection এবং আবেদন বাতিল হবে) ২২ থেকে ২৩ জুন পর্যন্ত। ৩য় পর্যায়ের আবেদনের সময়সীমা ২৪ জুন। পছন্দক্রম অনুযায়ী ২য় মাইগ্রেশনের ফল প্রকাশ ২৫ জুন। ৩য় পর্যায়ের শিক্ষার্থীর Selection নিশ্চায়ন (শিক্ষার্থী নিশ্চিত না করলে ৩য় পর্যায়ের Selection এবং আবেদন বাতিল হবে) ২৬ জুন পর্যন্ত। আর ভর্তির সময়সীমা ২৭ জুন থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত।

Post a Comment

 
Top