Advertise With Us
For Questions, Enquiries, Click Here
Page | Group - Follow us - Call Us - Admin - bdpathan420@gmail.com

আজকের এই পোস্টটির মাধ্যমে আমি আপনাদের সামনে অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলের কপি ক্লিপ বোর্ডের মধ্যে কপি করার সেরা সফটওয়্যার সম্পর্কে জানানোর জন্য এসেছি। কপি ক্লিপ বোর্ডের অনেকগুলো সফটওয়্যার রয়েছে, যা অনেকেই ব্যবহার করেন। আমি মোটামুটি ঐ সবগুলো সফটওয়্যার ব্যবহার করে দেখেছি। তো আপনারা যারা ঐসব সফটওয়্যারগুলো ব্যবহার করে থাকেন, ঐ সফটওয়্যারগুলোর মতই আজকের পোস্টের এই সফটওয়্যারটিরও একই কাজ। তবে একটু ভিন্ন, কেননা ঐ সফটওয়্যারগুলোর সবগুলোরই ডিজাইন বা সিস্টেমস প্রায় একই। কিন্তু আজকের এই সফটওয়্যারটির ডিজাইন বা সিস্টেমস ঐ সফটওয়্যারগুলো থেকে একদম আলাদা। আর এটি দিয়ে কাজ করতেও অনেক সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। মূলত এটি ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারের Chat Heads সিস্টেমের মত। তাই ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারের মতই ঐরকমভাবে এটি ব্যবহার করতে পারবেন। তো চলুন নিচে থেকে সফটওয়্যারটির সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্যসহ কয়েকটি স্ক্রিনশট দেখে নেওয়া যাক।

আজকে আমি যে সফটওয়্যার সম্পর্কে বলতে এসেছি আমার মনে হয় মোটামুটি অনেকেই এর সম্পর্কে কমবেশী জানেন। কিন্তু এখনো যারা কিছুই জানেন না, তাদের জন্য একটু কিছু বলে নেই। আসলে বর্তমান সময়ে আমরা স্মার্টফোনের মাধ্যমে বিভিন্ন সফটওয়্যার বা বিভিন্ন ওয়েবসাইটে গুরুত্বপূর্ণ কিছু লেখা কপি করে থাকি। অথবা বিভিন্ন ওয়েবসাইটের লিংক কপি করে থাকি। তো আমরা সকলে জানি যে, সাধারণত কোনো লেখা কপি করলে এর পরে যদি আরেকটি লেখা কপি করা হয় তাহলে আগের কপিকৃত লেখাটি হারিয়ে যায়, নতুন কপিকৃত লেখাটি কপির আওতাভুক্ত হয়। যদি আগের কপিকৃত লেখাটি রাখতে হয় তাহলে আমাদের সেটি কোনো নোট সফটওয়্যারে বা অন্য কোনো জায়গায় পেস্ট করে রেখে তারপরে নতুন অন্য লেখা কপি করতে হয়। যা অনেক ঝামেলা এবং সময়ের ব্যাপার। আর এই ঝামেলা থেকে মুক্তি দিতেই এই সফটওয়্যারের আবিষ্কার। যারা এতোদিন এই সফটওয়্যার সম্পর্কে কিছুই জানতেন না, আশা করি তারা আজকে জেনে গেলেন। এইবার তাহলে আমাদের আজকের বিষয়ের মূল কার্যক্রমের দিকে আসা যাক।

আজকের বিষয়ের সফটওয়্যারটির নাম হচ্ছে Copy Bubble সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন। ডাউনলোড করার পর অন্যান্য সফটওয়্যারের মতই ইনস্টল দিন। ইনস্টল দেওয়ার পর ওপেন করুন এবং ডান দিক থেকে বাম দিকে পাঁচবার স্ক্রল করুন। তারপর Click To Enter বাটনে ক্লিক করুন।
এই বাটনটিতে ক্লিক করার পরই সফটওয়্যারটি চালু হয়ে যাবে অর্থাৎ সে তার কাজ করা শুরু করে দিবে। ঠিক উপরের স্ক্রিনশটের মত মোবাইলের স্ক্রিনের বাম পাশে একটি ছোট্ট বাবল আইকন ভেসে উঠবে।
আপনি ইচ্ছে করলে সফটওয়্যারটির দেওয়া কিছু সেটিংস পরিবর্তন করতে পারবেন। সফটওয়্যারটির সেটিংস দেখতে উপরের স্ক্রিনশটটি দেখুন। যেমন (১) Auto start_এর কাজ হচ্ছে মোবাইল যদি কখনো বন্ধ করে আবার ওপেন করেন তাহলে সফটওয়্যারটি পুনরায় চালু হবে এবং তার কাজ শুরু করে দিবে। (২) Auto hide bubble when open_এর কাজ হচ্ছে বাবল আইকনটি হাইড করে রাখা বা লুকিয়ে রাখা। (৩) Hide bubble status bar icon_এর কাজ হচ্ছে নোটিফিকেশন বার থেকে বাবল আইকনটি হাইড বা লুকিয়ে রাখা। (৪) Bubble size_এর কাজ হচ্ছে বাবল আইকনটি ছোট বড় করা। (৫) Transparent_এর কাজ হচ্ছে বাবল আইকনটি সচ্ছ বা অসচ্ছ অর্থাৎ কালার গাঢ় বা হালকা করা।

এতক্ষণতো সফটওয়্যারটির সেটিংস দেখলাম, এইবার চলুন এর ডিজাইন বা সিস্টেম দেখে নেই। কপি ক্লিপ বোর্ড সফটওয়্যারের মধ্যে এই সফটওয়্যারটি একদমই অন্যরকমভাবে ডিজাইন করা হয়েছে। যার কারণে আমি এটিকে সেরা বলে সম্বোধন করেছি। আর এর সবকিছু দেখে আপনারাই ঠিক করবেন যে, এটি সেরা কিনা।
সফটওয়্যারটিতে উপরের স্ক্রিনশটের মত কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অপশন রাখা হয়েছে। যেমন (১) এডিট অপশন, যার মাধ্যমে কপিকৃত লেখাটি কাটসাট করা যাবে। (২) কপি অপশন, এর মাধ্যমে কপিকৃত লেখাটি কপি করার প্রয়োজন হলে কপি করতে পারবেন। (৩) শেয়ার অপশন, এর মাধ্যমে কপিকৃত লেখাটি অন্যান্য মাধ্যম ব্যবহার করে শেয়ার করতে পারবেন। (৪) ক্লোজ/মুছা অপশন, এটির মাধ্যমে কপিকৃত লেখাটি যদি কেটে দিতে চান, তাহলে কেটে দিতে পারবেন।
কপিকৃত লেখা যদি এডিট করতে চান, তাহলে এডিট অপশনে ক্লিক করলে ঠিক উপরের স্ক্রিনশটের মত আসবে। তারপর আপনি লেখাগুলোর যা কাটসাট করতে চান, তা করে স্ক্রিনশটের মত সেভ আইকনে ক্লিক করে সেভ করতে পারবেন।
এই সফটওয়্যারটির আরেকটি সুবিধা হলো আপনি যদি কোনো ওয়েবসাইটের লিংক কপি করে থাকেন। কিন্তু পরবর্তীতে কী প্রয়োজনে বা কী কারণে লিংকটি কপি করেছেন, তা ভুলে গেছেন। যেমন ধরুন উপরের স্ক্রিনশটের মত লিংকটি কপি করেছেন।
তাহলে লিংকটি কিসের বা কী জন্য কপি করেছেন তা জানতে এই সফটওয়্যারটিতে থাকা উপরের স্ক্রিনশটের মত উক্ত লিংকে ক্লিক করেই দেখে নিতে পারবেন। তবে হ্যাঁ! ইন্টারনেট কানেকশন লাগবে। সহজে বলতে গেলে ব্রাউজিংয়ের মত। আর আবার সফটওয়্যারটির হোম পেজে যেতে স্ক্রিনশটের মত আইকনটিতে ক্লিক করুন।
এটির আরেকটি সুবিধা বা অপশন হচ্ছে Multiple Choice যা উপরের স্ক্রিনশটের মত।
এই Multiple Choice অপশনে ক্লিক করলে এর মাধ্যমে উপরের স্ক্রিনশটের মত সফটওয়্যারটির কপিকৃত সকল লেখা একসাথে মার্ক করে কপি, শেয়ার এবং ডিলেট করতে পারবেন প্রয়োজনমত।

এতক্ষণতো সফটওয়্যারটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানলেন, তো কী মনে হলো আপনাদের কাছে। আমি আশা করি সফটওয়্যারটি আপনাদের কাছে অবশ্যই ভালো লাগবে। আর আরেকটি কথা, বিশেষ করে যারা আমার মত বিভিন্ন সাইটে লেখা লেখি করেন তাদের জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ সফটওয়্যার। তাহলে আর কী সফটওয়্যারটি সম্পর্কে বিস্তারিত পড়ে ডাউনলোড করে মোবাইলে ইনস্টল দিয়ে এর সুবিধাগুলো ভোগ করুন। আজকের মত এখানেই আমার পোস্টটি শেষ করলাম।

Post a Comment

 
Top